বিশ্বাস করুন আর নাই করুন

তাঁরই স্মরণে
 
 
 
যিনি তাঁর সেবায়, আন্তরিকতায় ও ভালবাসায় আমার জীবনের বিয়াল্লিশটি বছর ভরিয়ে রেখেছিলেন। সকল দুঃখ কষ্টকে হাসিমুখে বরণ করে নিয়েছেন, সবকিছু সমভাবে বেঁটে নিয়েছেন।
 
প্রধান শিক্ষিকার দায়িত্বের সাথে সাথে ছেলে-মেয়েদের সবাইকেও শিক্ষাদান করেছেন, সঠিক পথে চালিত করেছেন।
এখন আমাদের মাঝে পার্থিব দূরত্ব অনেক কিন্তু সে দূরত্ব কমিয়ে আনার ক্ষমতা আমার হাতে নেই। স্মৃতি বিজড়িত দিনগুলির কথা মনে আসলে তিনিও তার মাঝে হাজির হয়ে যান। যদিও তা আত্মিক।
 
তাই, এলোমেলোভাবে কলম চালাতে চালাতে যা কিছু স্মৃতিপটে এসেছে, তার বহু স্থানেই তিনি আছেন প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে।
 
এ লেখা তাঁরই প্রাপ্য।
 
 
ম.ফ. মওলা
 
 
 
 
আমার কথা
 
 
 
 
 
আমার কথা খুবই সংক্ষিপ্ত। আমি আগেও লেখক ছিলাম না, এখনও নিজেকে লেখক বলে আত্মম্ভরিতা দেখানো আমার পক্ষে সাজে না। স্কুল কলেজে ম্যাগাজিনে লেখা আর তাতে বাহবা পাওয়া লেখক হওয়ার মাপকাঠি নয়। পাঠকগণ যখন এ লেখা পড়ে বলবেন; এখানেই শেষ কেন, আর কৈ? তখনি লেখকের আসল পরিচিতি।
 
অবসর গ্রহণের পর, পুরনো দিনের গানের মত, কিছু পুরনো স্মৃতি ও কিছু বাস্তব অভিজ্ঞতার ঘটনা দিয়ে এই কথামালা সাজিয়েছি। জানিনা কে একে সাদরে মালার মত গলায় পরবেন বা কে অনাদরে পুরনো কাগজ ক্রেতার হাতে তুলে দেবেন। সাদরে গৃহীত হলে মনের প্রশান্তি বিস্তৃত হবে। পাঠক ও সুধীজনদের জন্য আন্তরিক কৃতজ্ঞতা বের হয়ে আসবে মনের অন্তঃস্থল হতে। তাঁদের তসলিম জানাবো, মহান সর্বশক্তিমানকে শুকরিয়া জানাবো। এই বলে যে, আমার পরিশ্রম ব্যর্থতায় পর্য্যবসিত হয়নি।
 
এবার আরো ছয়টি গল্প যোগ করা হয়েছে।
 
ভালোমন্দ যে যাই বলুন, সকলের প্রতি আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা।
 
 
ম.ফ. মওলা
 
 

প্রকাশকের কথা

 
 
লেখকের সঙ্গে পরিচয় প্রায় পঁচিশ বছরের মত। একই মসজিদে নামায পড়ি, একই রাস্তায় বাস করি, খুবই দিলখোলা মানুষ। আলাপ ও ঘনিষ্ঠতা হতে সময় লাগেনি। লেখক, এই পরিচয় জানা ছিল না। কখনো বলেনও নি। আমি তাঁকে জাতীয় প্রফেসর ডাঃ এম.আর. খান ও ভূতপূর্ব ক্যাবিনেট সচিব তথা মন্ত্রী মরহুম জনাব কেরামত আলীর সতীর্থ বলেই জানতাম।
 
একদিন আমার কার্য্যালয়ে এলেন, হাতে একটা ম্যাগাজিন  “অবসর জীবন”। অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মচারী কল্যাণ সমিতি হতে বছরে দু’বার ম্যাগাজিনটি বের হয়। জানতে চাইলেন, আমরা যদি ছেপে দিই, তাহলে কি রকম খরচ-খরচা পড়তে পারে। ম্যাগাজিনটি খুলে দেখলাম। তাঁর লেখা একটি গল্পও ছিল, “বিশ্বাস করুন আর নাই করুন”। জিজ্ঞেস করে জানা গেল, এ রকম আরো গল্প ও স্মৃতিচারণ তাঁর স্টকে আছে। লিখে ফেলতে উৎসাহ দিলাম।
 
তারই ফসল, আজকের এই বই “বিশ্বাস করুন আর নাই করুন”। লেখক বয়োবৃদ্ধ হলেও হৃদয় তারুণ্যে টইটুম্বুর।
 
আমার দৃঢ় বিশ্বাস, সকলেই বইটির গল্পগুচ্ছ পড়ে আনন্দ পাবেন।
 
 
গোলাম মোস্তফা
স্বত্বাধিকারী
 
 

সূচিপত্র

  • বিশ্বাস করুন আর নাই করুন  ১১
  • রক্তাক্ত কলকাতা  ১৬
  • ভয়  ২০
  • ভাগ্যচক্র  ২৫
  • ইষ্ট পাকিস্তান কালচারাল এসোসিয়েশন  ৩১
  • সাপ এবং সাপ  ৪১
  • আত্মপ্রসাদ  ৪৮
  • পট পরিবর্তন  ৫২
  • আমাদের হামিদ  ৫৯
  • মনু-মিনু ৬২
  • অশনি সংকেত (প্রথম) ৬৮
  • অশনি সংকেত (দ্বিতীয়) ৭১
  • অভিজ্ঞতা ৭৪
  • পালিয়ে বেড়াই  ৭৯
  • ট্রাংক দফতর উপকথা  ৮৩
  • জার্মান সফর  ৮৮
  • কুল্লো নাফসিন যায়েকাতুল মওত্  ৯২
  • এ্যাক্সিডেন্টাল  ৯৮
  • আমার প্রথম হজ্জ  ১০৯
  • পূণ্যার্থি ১২১
  • বিক্ষোভ  ১২৭
  • যুদ্ধ ও রস  ১৩১
  • দূরকে করেছ নিকট বন্ধু  ১৪১
  • আমরা কেমন  ১৪৭
  • ক্যাজুয়াল লিভ-অতি উত্তম ছুটি  ১৫৩
  • এত খুশি কোথায় গেল  ১৫৯
  • পলিসি পুল  ১৬৪
  • আসামী হাজির (প্রথম)  ১৭০
  • আসামী হাজির (দ্বিতীয়)  ১৭৪ 
  • পদক-মাসী  ১৭৭
  • মনোবিজ্ঞান  ১৮০
  • মার্শাল ল’  ১৮৫
  • হয়রানির পুরষ্কার  ১৯৩
  • গওসুল আযম দস্তগীর (সাঃ) ১৯৮ 
  • বাংলার কবি Ñ বাংলাদেশের জাতীয় কবি ২০২
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

Specifications

  • বইয়ের লেখক: ম.ফ. মওলা
  • আই.এস.বি.এন: ৯৮৪৭০২১৪০০৮৮১
  • স্টকের অবস্থা: স্টক আছে
  • ছাড়কৃত মূল্য: ১৯৫.০০ টাকা
  • বইয়ের মূল্য: ২৬০.০০ টাকা
  • সংস্করণ: প্রথম প্রকাশ
  • পৃষ্ঠা: ২০৬
  • প্রকাশক: হাক্কানী পাবলিশার্স
  • মুদ্রণ / ছাপা: টেকনো বিডি ইন্টারন্যাশনাল
  • বাঁধাই: Hardback
  • বছর / সন: ফেব্রুয়ারি ২০১৩

Share this Book

Sky Poker review bettingy.com/sky-poker read at bettingy.com